মৌসুমী মুখোপাধ্যায়

জন্ম সত্তর দশকের প্রথমার্ধে। শিক্ষা ইংরেজি সাহিত্যে এম এ। প্রথম লেখা প্রকাশিত হয় শুকতারা পত্রিকায়। প্রথম কাব্যগ্রন্থ শামুকজন্ম। অন্যান্য কাব্যগ্রন্থ -বিষণ্ণ দাবার কোর্ট, তোমার ইঙ্গিত বুঝি, পুর্বপুরুষের ছায়া, নক্ষত্রবাড়ি, খাদের কিনারে একা। ২০১৫ সালে বনলতা পুরস্কার, ২০১৬ সালে অমিতেশ মাইতি স্মৃতি পুরস্কার, ২০১৭ সালে নতুন কৃত্তিবাস পুরস্কার পেয়েছেন।

উদাসীন নির্জনতা

আমার মনখারাপের রাস্তা ধরে কে যেন হেঁটে যায় খালি পায়ে
নির্জনতার ভাঙা কিনার ঘেঁষে।
তার পায়ের শব্দ কেমন নিঃসঙ্গ
ইচ্ছেগুলোর চূড়োয় হাত বুলিয়ে অবেলায় খোঁজে, ভিজেবেলার শিশির
আকাশে ফেরায় দৃষ্টি
টুকরো মেঘ ঝুঁকে পড়েছে আহত মনের ঢিবির ওপর থেকে
গড়িয়ে পড়ে এক বুক তেষ্টা নিয়ে
পিছলে পড়ে শরীর গলা আলো।

কোনও ভূমিকা ছাড়াই আমি হেঁটে চলি রাস্তা ধরে এক সর্পিল নগরে
কোনও এক বাঁকে দেখি মনে পড়া কালো,
তার পরতে পরতে নরম গহীন কালো,
সেই কি আমার আলো?
আমার মনখারাপের উদাস তখন লাফিয়ে পড়ে শিশুর মতো
মেঘভাঙা রোদ্দুরে;
চোখ জুড়ে জাগে তৃপ্তির মৌনতা
আমি দৃষ্টি ফেরাই পিছে দেখি; কালো শূন্যতা
পথের সমুখ ধূ-ধূ; শুধুই বিরান ধূ-ধূ
নিঃসঙ্গ নির্জনতা!

বজ্রবিদ্যুৎ

জানি তুমি আমাকে পছন্দ করো না
তোমার চোখের নীচে জমে থাকা কালো কালো ছোপে তীব্র শ্লেষ
ওই নিকষ কালো দৃষ্টি আমাকে তাড়িয়ে বেড়ায়
আমি ঘরের দেওয়ালে মুখ লুকোই,
ছাদ ও জানালায় বিভৎস কালো ছোপ
আকাশ জুড়ে দেখি বজ্রবিদ্যুৎ, আর কালোর অঝোর ধারা
আমি সেই ধারায় ভিজে ভিজে তোমার কালোয় ‘তোমার’ হয়ে যাই।